তারিখ : ৩১ মে ২০২০, রবিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

১৮ তুলনায় ১৯ সালে ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে দ্বিগুণ

১৮ তুলনায় ১৯ সালে ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে দ্বিগুণ
[ভালুকা ডট কম : ১২ জানুয়ারী]
দেশে ধর্ষণসহ নারী নির্যাতন বাড়ছে। নতুন বছরের শুরুতেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ধর্ষণসহ কয়েকটি ঘটনা চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে।দেশের মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) এক প্রতিবেদন বলছে, ২০১৮ সালের তুলনায় ২০১৯ সালে ধর্ষণ ও গণধর্ষণের ঘটনা দ্বিগুণ বেড়েছে।

আসকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে ৭৩২টি আর ২০১৯ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ১৪১৩টি। ৭৬ জনকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয় আর ১০জন আত্মহত্যা করেছে। ২০১৭ সালে ধর্ষণের শিকার হন ৮১৮ জন নারী। তাদের প্রতি সহিংসতার অন্য চিত্রগুলোও ভয়াবহ। ২০১৯ সালে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন ২৫৮ জন নারী। ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিল ১৭০ জন।

সম্প্রতি রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে ধরে নিয়ে ধর্ষণ করে এক দুর্বৃত্ত। এতে উত্তাল হয়ে পড়ে দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতায় ধরা পড়ে ধর্ষক। এর রেশ কাটতে না কাটতেই পর পর কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে খোদ রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, যথাযথ তদন্ত ও বিচার না হওয়াতেই অনেক সময় পার পেয়ে যায় ধর্ষকরা। আবার বিলম্বিত বিচার প্রক্রিয়াও সমাজে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। ফেনীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনার রেশ এখনো কাটেনি। কুমিল্লায় তনু ধর্ষণ ও হত্যার স্মৃতি এখনো দগদগ করছে। বনানীর হোটেলে বিত্তবানের সন্তানের জন্মদিনের পার্টিতে ডেকে এনে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে ভিডিও করার ঘটনাও আছে।

২০০০ সালে কঠোর অনেক ব্যবস্থা রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন করা হয়েছে। কিন্তু ১৩০ বছরের পুরনো ব্রিটিশ আইনে ধর্ষণের যে সংজ্ঞা ছিল, এখনও সেটাকেই ভিত্তি ধরে বিচার করা হয়। আবার আইন অনুযায়ী ১৮০ দিনের মধ্যে মামলা শেষ করার কথা থাকলেও তা গড়ায় বছরের পর বছর, কখনো দশক। যা ন্যায়বিচারের জন্য প্রতিবন্ধক বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এটা একটি মানসিক ব্যাধি। শুধু আইন প্রয়োগ নয়, এটি প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার সময় হয়েছে। ইভটিজিংবিরোধী আন্দোলনের মতো সবাইকে চোখ কান খোলা রাখতে হবে। সামাজিকভাবে ঘৃনা ও বয়কট করতে হবে।

সবশেষ ২৪ ঘণ্টা ব্যবধানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ধর্ষণের অভিযোগে চিকিৎসা নিতে ভর্তি হয়েছেন ৪ নারী। এরমধ্যে দুই কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে ১৩ বছরের কিশোরীর পর, শুক্রবার ভাটারায় ১২ বছরের আরেক কিশোরী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। ঘটনার পর অভিযুক্ত রাসেলসহ ৪ জনকে আসামি করে ভাটারা থানায় মামলা হলেও তারা ধরা পড়েনি। আর কামরাঙ্গীরচরের ঘটনায় প্রধান আসামি রতনসহ ৬জন গ্রেফতার হয়েছে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অন্যান্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৬০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই