তারিখ : ০১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

রাণীনগরে পরিবেশবান্ধব পদ্ধতিতে বিষমুক্ত সবজি চাষ

রাণীনগরে পরিবেশবান্ধব সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ পদ্ধতিতে বিষমুক্ত সবজি চাষ বাড়ছে ॥ কমছে কীটনাশকের ব্যবহার
[ভালুকা ডট কম : ২৩ ডিসেম্বর]
পরিবেশবান্ধব পদ্ধতিতে সবজি ক্ষেতের ক্ষতিকারক পোকামাকড় নিধনে সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ (কীটনাশক ফাঁদ) ব্যবহার করে নওগাঁর রাণীনগরে বিষমুক্ত সবজি চাষ করা হচ্ছে। এ পদ্ধতিতে স্বল্প খরচ ও ফলাফল ভাল হওয়ায় সবজির উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। দিন দিন এই পদ্ধতিটি কৃষকদের কাছে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ফলে দিন দিন কমছে কীটনাশকের ব্যবহার। এতে করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা।

উপজেলার একডালা এলাকায় প্রবেশ করতেই রাস্তার পাশে বেগুন ও কুমড়া জাতীয় ক্ষেতে চোখে পড়বে এই সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ। ক্ষেতের মাঝে মাঝে স্থাপন করা হয়েছে এই ট্র্যাপগুলো। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিনামূল্যে প্রদান করা এই সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপগুলো কৃষকরা কুমড়া, বেগুন ক্ষেতসহ নানা সবজির ক্ষেতে ব্যবহার করে  বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করছেন। এতে করে কীটনাশকের ব্যবহার যেমন কমছে তেমনি খরচ কম হওয়ায় লাভও বেশি হচ্ছে।

পরিবেশবান্ধব জৈবিক পদ্ধতি সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ বা কীটনাশক ফাঁদ। এ পদ্ধতিতে ফসলের ক্ষতিকর পোকা মশা, মাছি, ফড়িং ও পোকামাকড় দমন করা হয়। ফসলের ক্ষতিকর পোকা-মাকড়ের গায়ের গন্ধ আলাদা আলাদাভাবে চিহ্নিত করে ফেরোমন লিউর তৈরি করা হয়। ফোরোমন লিউরে থাকে ক্ষতিকর স্ত্রী পোকার গায়ের গন্ধ। এতে ওই জাতের পুরুষ পোকা আকৃষ্ট হয়ে ট্র্যাপের মধ্যে রাখা পানিতে পড়ে মারা যায় এবং ক্ষতিকর পোকাগুলোর বংশ বিস্তার হয় না। ফলে ফসল বা শাকসবজি রক্ষা পায়। কীটনাশক ব্যবহার ছাড়াই রক্ষা পায় ফসল। পরিবেশের জন্য এ পদ্ধতি খুবই উপকারী। ফসল উৎপাদনে বিগত বছরগুলোতে কীটনাশকের জন্য কৃষকদের গুনতে হতো বাড়তি টাকা। ফলে লাভের একটি অংশ তাদের পকেট থেকে চলে যেতো। এবছর কৃষি অফিস থেকে পাওয়া কীটনাশক মুক্ত এ পদ্ধতি ব্যবহার করে সুবিধা পাচ্ছেন কৃষকরা। ফসলে কীটনাশকের জন্য বাড়তি টাকা আর খরচ করতে হচ্ছে না। এতে অনেক কৃষকরা এ পদ্ধতি ব্যবহারে আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ-২ (এনএটিপি-২) প্রকল্পের আওতায় কৃষকদের মাঝে জৈবিক কৃষি প্রযুক্তি পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে এই সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ বা কীটনাশক ফাঁদ বিনামূল্যে প্রদান করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের প্রায় শতাধিক কৃষকের মাঝে এই প্রযুক্তি প্রদানের মাধ্যমে প্রায় ১০হেক্টর সবজির ক্ষেতে এই সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ বা কীটনাশক ফাঁদের প্রদর্শনী স্থাপন করা হয়েছে।

উপজেলার পাকুরিয়া গ্রামের কৃষক এজাদুল হক, আব্দুল মান্নান, মহসিন আলীসহ অনেকেই বলেন বেগুনের আবাদে প্রচুর কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয়। তবুও বেগুনের ফলন তেমন ভালো পাওয়া যায় না। তবে পরিবেশবান্ধব এই পদ্ধতি ব্যবহার করে আমরা অনেক উপকৃত হচ্ছি। সূর্য অস্ত যাওয়ার পর ক্ষেতের ক্ষতিকারক পোকাগুলো এই ফাঁদে এসে পড়ে মরে যায়। এতে করে ক্ষেতে কম কীটনাশক ব্যবহার করতে হচ্ছে। ফলনও অনেকটা ভালো পাওয়া যাচ্ছে। আমাদের দেখাদেখি অন্যান্য কৃষকরাও এই পদ্ধতির প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো: শহীদুল ইসলাম বলেন মানুষের কাছে বিষমুক্ত সবজি পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে সরকারের যে ভিশন তা বাস্তবায়ন করছে কৃষি বিভাগ। পরিবেশবান্ধব এই জৈবিক সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ পদ্ধতিতে বিষমুক্ত ফসল উৎপাদন করা যায়। এতে পরিবেশের কোন ক্ষতি হয় না। এই পদ্ধতিতে উপজেলার কৃষকরা বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করছেন। এই পদ্ধতির প্রতি কৃষকদের আগ্রহ বৃদ্ধি করা ও কীটনাশকের ব্যবহার কমানোর লক্ষ্যে এই ট্র্যাপ উপকরনগুলো সরকার বিনামূল্যে প্রদান করছেন। কৃষকরা এই পদ্ধতির প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছেন। আগামীতেও এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

কৃষি/শিল্প বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৩৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই