তারিখ : ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকার রাস্তায় পণ্যের পসরা, ভোগান্তিতে পথচারী

ভালুকার রাস্তায় পণ্যের পসরা, ভোগান্তিতে পথচারী
[ভালুকা ডট কম : ১৭ অক্টোবর]
ভালুকা পৌরসভার প্রধান সড়কে দোকানিরা বসায় সরকারি হাসপাতালের রোগী,কয়েকটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও পথচারীদের যাতায়াতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।গত কয়েক বছর ধরে মূল রাস্তার পাশে বিভিন্ন ধরণের পণ্য সাজিয়ে দোকানিরা বসলেও পৌর কর্তৃপক্ষ সেগুলো অন্যত্র স্থানান্তরে কোনো উদ্যোগ নেয়নি। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে একাধিক বার উচ্ছেদ করা হয়েছে। কিন্ত দুই-তিন দিন পর আবার দোকান নিয়ে বসেন ব্যবসায়ীরা।

স্থানীয় বাসিন্দা ও দেকানিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে,প্রতিদিন দুপুর থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত  ভালুকা বাসস্ট্যান্ডের চার রাস্তার মোড়ের পশ্চিম দিকের রাস্তার শুরু থেকে পাঁচ রাস্তার মোড়ের রাস্তাগুলোর দুই পাশে দোকানিরা তাদের পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেন। ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়ে রাস্তাটি হয়ে পড়ে সরু । ফলে প্রতিদিনই যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতাসহ যানজট লাগে।কখনো রোগী নিয়েও অ্যাম্বোলেন্সকে রাস্তায় দারিয়ে থাকতে হয়।

পাঁচ রাস্তার মোড়ের পশ্চিম-উত্তর দিকে ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। পূর্বপাশেই ভালুকা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়। দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে হালিমুন্নেছা চৌধুরানী মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। উত্তর দিকে ভালুকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই মোড়ের আশেপাশেই আরও কয়েকটি প্রাইভেট ক্লিনিক, ব্যাংক ও বিপণি বিতান।

ভালুকা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছয়জন ছাত্রী জানান,সকাল বেলা রাস্তার পাশে ও ফুটপাতে দোকান থাকে না। তখন তাদের বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে সমস্যায় পড়তে হয়না। কিন্তু বিদ্যালয় থেকে বাড়ি ফেরার পথে প্রতিদিন সড়কের জ্যাম ঠেলে বাড়ি পৌঁছাতে হয়। রিকশায় এক মিনিটের রাস্তায় তখন সময় ব্যায় হয় ১৫-২০ মিনিট।

ভালুকা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম চৌধুরী জানান, চাররাস্তার মোড়  থেকে পাঁচ রাস্তার মোড় পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশের অস্থায়ী দোকান বসায় মেয়েদের বিদ্যালয়ে যাতায়াত কঠিন হয়ে পড়েছে। এই দোকান গুলো বসার কারণে কিছু খারাপ প্রকৃতির ছেলে সেখানে দারিয়ে থাকার সুযোগ নেয়। অন্তত ছাত্রীদের কথা চিন্তা করে এই অস্থায়ী দোকানিদের অন্যত্র স্থানান্তর করা প্রয়োজন। রিকশাচালক জালাল উদ্দিন জানান, রাস্তার দুই পাশে দোকানের কারণে প্রতিদিনই চার রাস্তার মোড় থেকে পাঁচ রাস্তার মোড় পর্যন্ত থেমে থেমে যানজট লেগে থাকে।

বুধবার দুপুরে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোকানিরা কেউ কেউ তাদের পন্যের পসরা সাজিয়ে বসছেন। আবার কেউ পসরা সাজানোর কাজ করছেন। রাস্তার দুই পাশেই শাক-সবজি,ঁেপয়াজ, রসুন ও বিভিন্ন প্রকার ফলের দোকান নিয়ে বসতে দেখা দেখা গেছে দোকানিদের। এর মধ্যেই রাস্তায় থেমে থেমে যানজট তৈরি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে অন্তত আটজন দোকানি জানান, তাঁরা মূল সড়কের পাশে যে পন্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন, তার জন্য প্রত্যেক দোকানিকে প্রতিদিন ২০টাকা থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত ভালুকা বাজারের ইজারাদারের লোকদের দিতে হয়। এই রাস্তায় বসলে তাদের বিক্রি বেশি হয়। তাই প্রশাসনের পক্ষ থেকে উচ্ছেদ করা হলেও আবার এখানে দোকান নিয়ে বসেন তাঁরা ।

পাঁচরাস্তা মোড়ের যানজটের কথা উল্লেখ করে ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বোলেন্স চালক স্বপন মিয়া জানান, হাসপাতাল থেকে অ্যাম্বোলেন্স নিয়ে এক টানে কোন দিনই মহাসড়কে উঠা যায় না। প্রতিদিন বিশেষ করে বিকেল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত পাঁচরাস্তা মোড়ের প্রতিবন্ধকতা ঠেলে রোগী নিয়ে আসা-যাওয়া করতে হয়।

এ বিষয়ে ভালুকা পৌরসভার মেয়র একেএম মেজবাহ উদ্দিন বলেন, প্রশাসনের সহযোগীতা নিয়ে ওই রাস্তার দোকানিদের বেশ কয়েকবার উচ্ছেদ করা হয়েছে। রাস্তাটির প্রশস্থ করণসহ সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। এখনতো মূল রাস্তার পাশের ইটের উপর বসে দোকানিরা। ইট উঠানোর কাজ চলছে। কার্পেটিং করে মূল রাস্তাটি আরও প্রসস্থ করা হবে। তখন দোকানিরা সেখানে বসতে পারবে না।#  





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২২২ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই