তারিখ : ১২ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নান্দাইলে নারী ইউপি সদস্যের উপর হামলা

নান্দাইলে নারী ইউপি সদস্যের উপর হামলা
[ভালুকা ডট কম : ২৩ জুন]
ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার ১২নং জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের নির্বাচিত নারী ইউপি সদস্য মোছাঃ সাহিদা আক্তারকে বিয়ের প্রস্তাবে রাজি করাতে না পারায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে মাথা ফাটালেন সাবেক পুরুষ ইউপি সদস্য। পরে ওই ইউপি সদস্যকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ৯টি সেলাই দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে এ ধরনের ঘটনাটি ঘটেছে ১২নং জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নে।

আহত ইউপি সদস্যের নাম মোছাম্মৎ সাহিদা আক্তার (৩৮) তিনি উপজেলার ১২নং জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের ৪,৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য। অভিযুক্ত রুকন উদ্দিন একই ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য।

আহত ইউপি সদস্যা জানান, তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে স্বামী সংসারে ভালোই ছিলেন। নির্বাচনের পর রুকন উদ্দিন নামে সাবেক ইউপি সদস্য স্বামীর ঘনিষ্ট হওয়ায় প্রায়ই বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন। এ অবস্থায় একদিন স্বামী বাড়িতে না থাকায় ঘরে প্রবেশ করে তাঁর সঙ্গে আলাপ করতে থাকে। এ সময় স্বামী হঠাৎ এসে রুকনকে দেখতে পেয়ে অসময়ে আসার কারণ জানতে চাইলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এর কিছু দিন পর মিথ্যা অপবাদ ছড়িয়ে স্বামীর কাছে বিভেদ সৃষ্টি করে সংসার ভাঙে। সেই সঙ্গে স্বামী আরেকটি বিয়েও করে। এদিকে প্রতিনিয়তই রুকন তাঁকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করে আসায় থানায় পরপর দুইটি জিডি করেন। এ ঘটনার পর থেকে তিনি আরো বেপরোয়া হয়ে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিলেন। গত বৃহস্পতিবার তিনি ভিজিডি কার্ড বিতরণের জন্য নান্দাইল সদরের বাসা থেকে জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নে যান। ওই সময় পরিষদের কিছু দূরে আবালধনি বাজারের কাছে যাওয়ার পর রুকন তাঁর পথ আটকে তার সঙ্গে যেতে বলে। এতে তিনি রাজি হওয়ায় তাঁকে টেনেহিঁচড়ে নেওয়ার চেষ্টাকালে ধস্তাধস্তিতে মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় রুকন একটি লাঠি নিয়ে তাঁকে বেদম মারপিট করে মাথা ফাটিয়ে দেয়।খবর পেয়ে এলাকার লোকজন উদ্ধার করে নান্দাইল উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। এখানে অবস্থা গুরুতর দেখে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত ডাক্তার মাথায় নয়টি সেলাই দিয়ে দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

এ বিষয়ে নান্দাইল থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ কামরুল ইসলাম মিয়া বলেন, আহত ইউপি সদস্যা থানায় অভিযোগ দিলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন নান্দাইল উপজেলা নেতৃবৃন্দ প্রকাশ্যে দিবালোকে একজন মহিলা মেম্বারের উপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে অভিলম্বে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জোরদাবী জানিয়েছেন।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকার বাইরে বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২২০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই