তারিখ : ১৭ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকার জাবুর হাতে আলাউদ্দিনের চেরাগ

ভালুকার জাবুর হাতে আলাউদ্দিনের চেরাগ দুধ বিক্রেতা থেকে দেড়’শ কোটি টাকার মালিক
[ভালুকা ডট কম : ১৬ জুলাই]
ভালুকা উপজেলার ধামশুর গ্রামের মৃত উমর আলী গাজীর ছেলে মো: জাবেদ আলী গাজী ওরফে জাবু। বয়স তার ৬০ থেকে ৬৫ বছর হবে। এক সময় তিনি বাজারে গরুর দুধ বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। পরে দুটি টেম্পু কিনে তা বেশ কিছুদিন ভালুকা থেকে হাজিরবাজার মহাসড়কে ভাড়ায় চালাতেন। এখর তিনি একটি দলিলে ৫০ একর ৬৫ শাতংশ জমির জোতদার ও ভালুকা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় কোটি টাকা মূল্যের মার্কেট এবং মাছের খামারসহ দেড়’শ কোটি টাকার মালিক।

খোঁজ নিয়ে ও দলিলে উল্লেখিত তথ্যে জানা গেছে, মো: জাবেদ আলী গাজীর নিজ নামে একটি দলিলে উপজেলার হবিরবাড়ি মৌজার ৬৫২ নম্বর দাগে ৩৫ একর ২৩ শতাংশ ও ৬৫৫ নম্বর দাগে ১৫ একর ৬৫ শতাংশ, মোট ৫০ একর ৬৫ শতাংশ জমি রয়েছে। ৩০ হাজার টাকায় একটি মাত্র দলিলে (নম্বর-৪২১৮, তারিখ-২৯/০৭/১৯৬৫ইং) শ্রী বরাজা কান্ত নাগ যার পিতা-মৃত চন্দ্র কান্ত নাগ নামে এক ব্যক্তিকে দাতা হিসেবে দেখানো হয়েছে। বাড়ির ঠিকানা উল্লেখ রয়েছে গফরগাঁও উপজেলার রাওনা গ্রাম। জমিটির বর্তমান বাজার মূল্য প্রতি শতাংশ তিন লাখ টাকা হিসেবে একশ ৫১ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।

এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা গেছে, জাবেদ আলী ওরফে জাবুর এসব জমির কাগজপত্র সবই ভূয়া ও জাল জালিয়াতির মাধ্যমে করা। কোন কাগজপত্রই সঠিক নয়। সে নিজেই এসব কাগজপত্র তৈরী করেছেন। মাঠপর্চা থেকে শুরু করে, জমা খারিজ ও নামজারী, খাজনার রশিদ এমনকি দলিলসহ সবই সে ও রাইচউদ্দিন নামে অপর এক জালিয়াতকারী এবং তাদের সাথে ভূমি দালাল চক্রের একটি সিন্ডিকেট এসব করে থাকে। শুধু তাই নয় এসব কাগজপত্র দেখিয়ে ঢাকার কোন কোন শিল্পপতির কাছ থেকে কোটি কোটি টাকাও হাতিয়ে নেয়ার বিষয়টি আলোচনা সর্বমহলে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, ওইসব জাল কাগজপত্র উপস্থাপন করে কোন কোন শিল্পপতি ব্যাংক থেকে শত শত কোটি টাকা উত্তোলন করেছেন। যা সংশ্লিষ্ট বিভাগ নিরপেক্ষ তদন্ত করলে আসল রহস্য বেড়িয়ে আসবে। আবার কোন কোন শিল্পপতি এসব ভূয়া কাগজপত্র দেখে সড়ল বিশ্বাসে জাবেদ আলী ওরফে জাবুসহ তার দালল চক্রের হাতে কোটি কোটি টাকা তুলে দিয়ে প্রতারণার শিকার হয়েছেন এমন খবরও শোনা গেছে। বর্তমানে জাবেদ আলী ভালুকা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এক কোটি টাকা মূল্যের মার্কেটের মালিকসহ কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন।

এ ব্যাপারে মো: জাবেদ আলী গাজী জানান, তিনি নাবালক থাকা অবস্থায় ৫০ একর ৬৫ শতাংশ জমি এক হিন্দু জমিদার তার নামে সাবকাবওলা করে দিয়েছিলেন।#






সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫২৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই